আমার স্বামীর নাম শুভদীপ বন্দোপাধ্যায়

View previous topic View next topic Go down

আমার স্বামীর নাম শুভদীপ বন্দোপাধ্যায়

Post  Admin on Sun Aug 29, 2010 3:22 pm

আমার নাম অনিন্দিতা বন্দোপাধ্যায়। আমি আমার জীবনের নানা ঘটনা (বিশেষত যৌন ঘটনা) আজ আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করব। আমার স্বামীর নাম শুভদীপ বন্দোপাধ্যায়। আমার ডাকনাম অনু আর শুভদীপের পাপাই। আমরা এবং আমাদের প্রিয়জনেরা আমাদের উভয়কে এই নামে ডাকি।
প্রথমে আমার কথায় আসি, আমি বাবা মায়ের একমাত্র সন্তান। আমাদের বাড়ি চন্দননগরে, হাওড়া থেকে ট্রেনে এক ঘন্টা মতন লাগে। আমার বাপের বাড়ি যৌথ পরিবার, আমার বাবা আর আমার দুই জেঠু সপরিবারে থাকে। আমার দুই জেঠুরিই একটি করে ছেলে আছে, তাদের বিয়েও হয়ে গেছে। আমার বাবা একজন অধ্যাপক ও মা গৃহবধু। আমার দুই জেঠুই রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাঙ্কে কাজ করতেন, এখন রিটায়ার্ড আর দুই জেঠিমা আর দুই বৌদি গৃহবধু। আমার দুই জেঠতুতো দাদা রেলে কাজ করে। বুঝতেই পারছেন আমি এক সচ্ছল মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে। আমাদের পরিবারের সবাই মোটামুটি শিক্ষিত হলেও পোশাক আশাকের দিক থেকে খুবই রক্ষণশীল। বাড়ির বউদের শাড়ী ছাড়া আর কোনো পোশাক পরার অনুমতি নেই। আমি বড় হওয়ার পর শুধু সেলোয়ার-কামিজ আর শাড়ি পরতাম। আমি সবচেয়ে ছোট হওয়ায় সবাই আমায় শাসন করত, অবশ্যি ভালোওবাসতো সবথেকে বেশি
এবার আমার ব্যক্তিগত বিষয়ে আসা যাক। আমি দেখতে অত্যন্ত সুন্দরি, গায়ের রং খুবই ফর্সা, হাইট ৫’৭” সাধারন বাঙালি মেয়েদের তুলনায় বেশ লম্বা। আমার ফিগারটাও দেখার মত ৩৪সি-২৬-৩৪। তবে সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ হচ্ছে আমার মুখশ্রী আর আমার দুটি বড় বড় টানা টানা চোখ। অনেকের মতে আমাকে নাকি অনেকটা ফিল্মস্টারদের মত দেখতে, যাই হোক আমাকে যে ফাটাফাটি দেখতে তা আর বলে দিতে হয় না।
আমার জীবনে আমার স্বামীই প্রথম পুরুষ। বিয়ের আগে কোনো ছেলের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা করার তেমন সুযোগও ছিলনা। বাড়ির ছোট মেয়ে তার উপর সুন্দরী হওয়াতে বাড়ির সবাই সবসময় চোখে চোখে রাখতেন। আমার স্কুল, কলেজ কোনটাই কো-এড ছিলনা । তবু ক্লাস এইট থেকে যাওয়ার সময় বাবা স্কুল, কলেজের গেট অব্দি ছেড়ে আসতেন আর ফেরার সময় মা গেট থেকে নিয়ে আসতেন। প্রাইভেট পড়তে যেতাম যখন তখনও হয় বাবা মা না হয় বাড়ির অন্য কেউ দিয়ে আসতেন বা নিয়ে আসতেন। বন্ধুরা এই নিয়ে হাসাহাসি করলেও আমি গা করতামনা কারণ আমি মনে করতাম বাবা মা যা করছেন আমার ভালোর জন্যই করছেন। প্রাইভেট পড়ার সময় কয়েকটা ছেলে ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্ঠা করলেও আমি পাত্তা দেইনি কারণ আমি জানতাম আমার বাড়ির লোক এসব মেনে নেবেন না। অবশ্য বাড়ির লোকেদের প্রতি আমার কোন অভিযোগ নেই সবাই আমায় খুব ভালবাসতেন। বাড়ির অন্যদের সঙ্গে তাস, লুডু, ক্যারাম খেলে গল্প গুজব করে দিব্যি সময় কেটে যেত। এছাড়া আমি ঘরকন্নার নানা কাজ করতে ভালবাসতাম। ১২-১৩ বছর বয়স থেকেই আমি গৃহস্থলির নানা কাজ করতাম। বাড়ির লোকেরাও আমাকে এ বিষয়ে উৎসাহ দিতেন যাতে শ্বশুরবাড়িতে আমার কোন অসুবিধা না হয়।
….পাপাইয়ের সঙ্গে আমার সম্বন্ধ করে বিয়ে হয়। আমি তখন কলেজে ফাইনাল ইয়ারের ছাত্রী। আমার বাবার কলিগের সূত্র দিয়ে সম্বন্ধ আসে। যদিও আমার বাড়ির লোকেদের আমার বিয়ে নিয়ে কোন তাড়াহুড়ো ছিলনা, কিন্তু এত ভাল প্রস্তাব যে এক কথায় সবাই রাজি হয়ে যায়। পাপাই একজন ইঞ্জিনিয়ার, আইআইটি খড়্গপুর থেকে পাস করে ৫ বছর আমেরিকায় চাকরি করেছে একটি বড় বহুজাতিক সংস্থায়। বর্তমানে বোম্বেতে ২ বছর হল ব্যবসা করছে। পরিবারও বেশ ভাল ওর বাবা একজন প্রাক্তন আমলা। পাপাইরা দুই ভাই পাপাই ছোট, ওর দাদা ডাক্তার, কলকাতার এক নামী সার্জেন্ট, বিদেশি ডিগ্রি ও আছে। ওর দাদার বিয়ে হয়ে গেছে ও একটি তিন বছরের বাচ্চা ছেলে আছে। ওদেরও আমাদের মত যৌথ পরিবার। ওদের বাড়ি সল্টলেকে। পাপাই প্রায় প্রতি মাসেই কলকাতায় আসে। সল্টলেকেও ওর একটা অফিস আছে। এত ভাল পাত্র পেয়ে আমার বাড়ির সবাই খুশি। ঠিক হয় দিন পনের পর ওরা আমায় দেখতে আসবে, পাপাইও সেসময় কলকাতায় থাকবে।
আমার মাসির বাড়ি কলকাতায়। ঠিক হয় সেখানেই ওরা আমায় দেখতে আসবে। দিন সাতেক পরে আমার বাবা আমাকে ও মাকে মাসির বাড়ি রেখে আসেন। মাসির বাড়ির লোকেরাও খুব খুশি। মাসি, মেসো, মাসতুতো দাদা, বৌদি সবাই আমায় বলছিলো- অনু যা সুন্দর দেখতে এইরকম বর পাওয়াই স্বাভাবিক।
বাবা যাওয়ার আগে বৌদিকে ডেকে আমাকে ভালো কোন বিউটি পার্লারে নিয়ে যেতে বললেন। বৌদিও বাবাকে আস্বস্ত করে বলল, “আপনি কোন চিন্তা করবেন না মেসোমসাই! অনু এমনিতেই যা সুন্দর দেখতে তার উপর সাজগোজ করলে এমন ফাটাফাটি লাগবে যে পাত্র পক্ষ চোখ ফেরাতে পারবে না”। বৌদি কলকাতার মেয়ে চালচলন, বেশভুশায় বেশ আধুনিকা। বুঝলাম আমেরিকা ফেরত হবু জামাইয়ের জন্য বাবা বৌদির উপর বেশ ভরসা করছেন। বৌদিকে আমারও বেশ লাগে তাই আমিও কোন আপত্তি করলাম না। পরের রবিবার আমাকে দেখতে আসবে, বাবা শুক্রবার রাতে আসবে বলে চলে গেলেন।
আমার মায়েরা দুই বোন, মাসী মায়ের চেয়ে অনেক বড়। বাবা আর মেসোমশাই একই কলেজে পড়াতেন, বাবা বাঙলা আর মেসো ইংরেজি। এখন অবশ্য মেসো রিটায়ার্ড করেছেন। বাবা মায়ের বিয়ের সম্বন্ধটা মেসোর মাধ্যমেই হয়েছিল। মাসীর একটিই ছেলে, ওর নাম সৌরভ, তাকে আমি দাদাভাই বলে ডাকি। দাদাভাই প্রেম করে বিয়ে করেছে, বিয়েতে দু’বাড়ির কোন অসম্মতি ছিলনা কারণ দাদাভাই পড়াশুনায় খুবই ভাল আর একটি বহুজাতিক সংস্থায় উঁচু পদে চাকরি করে, বৌদিও দেখতে শুনতে খুব ভাল। দাদাভাইয়ের বিয়ের আগে থেকেই আমি বৌদিকে চিনতাম। আমার দাদু, দিদা দুজনেই গত হয়েছেন তাই মাসীর বাড়ি এখন মায়ের কাছে অনেকটা বাপের বাড়ীর মত, সেজন্য আমরা বিশেষ করে আমি আর মা প্রায়ই মাসীর বাড়ি আসি। কলকাতা আসতে আমারও খুব ভাল লাগে। দাদাভাইয়ের বিয়ের আগে আমি, বৌদি ও দাদাভাই একসাথে বেশ কয়েকবার সিনেমা দেখতে, পার্কে বা আরো নানা জায়গায় ঘুরতে গেছি। বৌদি বেশ মিশুকে তাই আমার সঙ্গে ভালই বন্ধুত্ব হয়ে গেছিল। আমাদের সম্পর্ক এতই অন্তরঙ্গ ছিল যে বৌদি আমার সঙ্গে তুইতোকারি করে কথা বলত। আগেই বলেছি বৌদির চালচলন, বেশভুষায় বেশ আধুনিকা ও সাহসী। বিয়ের আগে বৌদি শুধু ওয়েষ্র্টান ড্রেস পরতো, স্কিন টাইট টপ, লো ওয়েষ্ট জিন্স বা মিনি স্কার্ট, টিউব টপ, ট্যাঙ্ক টপ এ ধরনের জামা কাপড় পরতো। তখন আমরা যখন একসাথে কোথাও যেতাম সব ছেলেরা বৌদিকেই দেখতো, আমার দিকে কেউ নজর দিতো না । যদিও আমি বৌদির থেকে দেখতে সুন্দরী ছিলাম। আরো একটা ব্যাপার লক্ষ্য করতাম দাদাভাই ও এ ব্যাপারটা বেশ উপভোগ করে।

Admin
Admin

Posts : 285
Reputation : 0
Join date : 13/08/2010

View user profile http://choti.createfreeforum.net

Back to top Go down

Re: আমার স্বামীর নাম শুভদীপ বন্দোপাধ্যায়

Post  Admin on Sun Aug 29, 2010 3:22 pm

….কদিন পর বৌদি আমায় নিয়ে পার্লারে গেল। এটা একটা স্পা পার্লার, দেখেই বোঝা যায় বেশ নামকরা আর কস্টলি। বৌদি মাঝেমাঝে এখানে আসে, লোকজনও মোটামুটি চেনা। আমি রিসেপসনে বসে একটা ফ্যাশান ম্যাগাজিন দেখছিলাম। ম্যাগাজিনটা মনে হয় বিদেশি, সব বিদেশি মডেলদের ছবি, ছবি গুলি সবই বেশ দুঃসাহসি, হয় অন্তর্বাস না হয় বিকিনি পরা। দু’একটা টপলেস ছবিও দেখলাম। এরকম ছবি আমি আগে কখনো দেখিনি, শরীরে যেন একটা চোরা বিদ্যুতের স্রোত বয়ে গেল, ঠিক এই সময় বৌদির ডাকে সম্বিত ফিরে এল। তাড়াতাড়ি ম্যাগাজিনটা বন্ধ করে পাশে রেখে দিলাম। বৌদি ম্যাগাজিনটা দেখে মুচকি হেসে বলল “এদের থেকে তুমি ঢেড় বেশি সুন্দরি”। আমি লজ্জা পেয়ে বললাম “যা! তুমি বড্ড ইয়ার্কি মারো”। এরপর আমরা ট্রিটমেন্ট রুমে এলাম, দেখলাম একটা মেয়ে অপেক্ষা করছে। মেয়েটির নাম রিনা আর তার সাথে বৌদির ভালই আলাপ আছে। আমাকে দেখে বৌদিকে বলল “কাবেরিদি (বৌদির নাম) ইনিই তোমার ননদ”? বৌদি উত্তরে হ্যাঁ বলল। তখন রিনা বলল “এতো তুমি যা বলেছিলে তার চেয়েও অনেক বেশি সুন্দরী”, তারপর আমার হাত ধরে আমায় একটা খুব আরামদায়ক চেয়ারে বসাল। আমি ঘাড় ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে চারপাশ দেখছিলাম। খুব সুন্দর ডিজাইন করা এই ট্রিটমেন্ট রুমের ইন্টেরিয়রটা। চার দেওয়াল এমনকি ফলস সিলিংএ ও আয়না আছে। রুমটায় প্রাইভেসিও আছে। আমি চারপাশ দেখছিলাম এমন সময় বৌদি অন্য একটা ম্যাগাজিন খুলে আমায় একটা ছবি দেখিয়ে বলল “এই হেয়ার স্টাইলটা কেমন, আমার মনে হয় এটায় তোকে সবচেয়ে বেশি মানাবে”। আমারও স্টাইলটা পছন্দ হয়েছিল। আমার সম্মতি আছে দেখে বৌদি রিনাকে নির্দেশ দিল শুরু করার। বৌদি পেছনে একটা সোফায় বসে ম্যাগাজিনের পাতা ওল্টাতে লাগল। রিনা প্রথমেই আমায় শ্যাম্পু করিয়ে চুল কাটল। তারপর কালার করতে লাগল। শেষ হলে বলল এখন ৪৫ মিনিট এই ভাবে থাকতে হবে। তবে চিন্তার কিছু নেই এই সময় তোমার ফেসিয়াল করা হবে। ফেসিয়াল হয়ে যাওয়ার পর আমার মুখ ও চুল আবার ভাল করে ধুইয়ে দিল। আয়নায় নিজেকে দেখে বেশ ভাল লাগল। মুখে বেশ একটা জেল্লা এসেছে। চুলটাও বেশ লাগছে, অনেকটা ঐশ্বর্য রাইয়ের মত। আমি ঘাড় ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে বিভিন্ন দিক থেকে আমায় কেমন লাগছে দেখছিলাম। বৌদি কখন যে আমার পেছনে এসে দাঁড়িয়েছে খেয়ালই করিনি। “পছন্দ হয়েছে”- আমার কাঁধে হাত রেখে জিজ্ঞেস করল বৌদি। আমিও খুশিতে বৌদিকে জড়িয়ে ধরে বললাম “খুব পছন্দ হয়েছে”।
….ততক্ষনে রিনাও ফিরে এসেছে। বৌদিকে ও বলল এবার আমার প্যাডিকিওয়র ও ম্যানিকিওউর করবে। তবে একটা সমস্যা হচ্ছিল, আমি ফুলস্লিভ সালোয়ার কামিজ পরে পার্লারে এসেছিলাম, রিনা বলল কামিজটা খুলতে হবে না হলে পুরো হাতের ওয়াক্স করা যাবেনা। আমি আপত্তি করলে বৌদি বলল “এটাতো প্রাইভেট রুম, এখানে আমি আর রিনা ছাড়া কেউ নেই তোর কামিজ খুলতে আপত্তি কোথায়?”। আমি দোনামোনা করছি দেখে বৌদি দৃঢ় কন্ঠে নির্দেশ দিল “ফালতু সময় নষ্ট না করে তাড়াতাড়ি কামিজটা খুলে ফেল”। কোন উপায় না দেখে আমি কামিজটা খুলে দিলাম। দেখি রিনা আর বৌদি দুজনেই বড় বড় চোখে আমার শরীরটা দেখছে আর হা করে গিলছে! আমার লজ্জা লাগছিল। বড় হওয়ার পর থেকে আমি কারো সামনে জামা কাপড় ছাড়িনি (একজন বাদে)। আর এখন সম্পুর্ন অচেনা একটা মেয়ে আর মাসতুতো বৌদির সামনে শুধু একটা ব্রেসিয়ার পরে দাঁড়িয়ে আছি ! বৌদি আমার লজ্জা পাওয়াকে পাত্তা না দিয়ে রিনাকে বলল “দেখছিস আমার ননদের ফিগারটা! তোর কাছে তো অনেক মডেল, সিনেমা আর্টিস্টরা আসে আমাদের অনু তাদের থেকে কোন অংশে কম?” রিনা বলল “সত্যি বলছি কাবেরিদি অনেক সুন্দরী মহিলা দেখেছি কিন্তু ওর মত কাউকে দেখিনি যেমন দেখতে তেমন ফিগার”। বৌদি হুঁ হুঁ করে বলল “সেই জন্যইতো কোন এক বিয়ের বাড়িতে একঝলক দেখে অতবড় শিক্ষিত বড়লোক ছেলে আমার সুন্দরী ননদকে বিয়ে করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে”। আমি ততক্ষনে আবার চেয়ারে বসেছি আমার অস্বস্তি হছে দেখে রিনা একটা বড় তোয়ালে দিল আমার গায়ে জড়ানোর জন্য। আমি মনে মনে ওর পেশাদারী মনোভাবের তারিফ না করে পারলাম না, অবশ্য ওকে ধন্যবাদও জানালাম। ও মৃদু হেসে আমার গালটা আস্তে করে টিপে দিয়ে আবার কাজ করতে লাগল। আমায় তোয়ালে জড়িয়ে বসতে দেখে বৌদি বলল “অনু তোকে এত সুন্দর দেখতে তার উপর এমন দারুন ফিগার। তুই সবসময় এত কনজারভেটিভলি ড্রেসআপ করিস কেন”? তারপর রিনাকে জিজ্ঞাসা করল “তোরকি মনে হয় না অনুর এই বয়েসে আরেকটু খোলামেলা মর্ডান জামা কাপড় পরা উচিত?”। রিনা কাজ করতে করতে সম্মতিসূচক ঘাড় নাড়িয়ে বলল “এটাইতো বয়স, এখন না পরলে কখন পরবে”। বৌদি বলল “অনুদের বাড়ি বড্ড রক্ষণশীল, তবে চিন্তার কিছু নেই ওর আমেরিকা ফেরত বর বিয়ের পর ওকে নিশ্চয়ই সবসময় গলা থেকে পা পর্যন্ত ঢেকে রাখবে না”। রিনা প্রসঙ্গ ঘুরিয়ে বলল “অনুর মত না হলেও তুমিও কম সুন্দরী নও কাবেরিদি; বিয়ের পর তোমাকেও আর অত খোলামেলা পোশাকে দেখা যায়না, আর তোমার বরওতো শুনেছি বিদেশে গেছে”। বৌদি বলল “সে তো মাত্র কদিনের জন্য। আমার শ্বশুরবাড়ি অনুদের মত রক্ষণশীল না হলেও শ্বশুরবাড়িতে বাড়ির বউকে ওইসব পোশাকে মানায়? পাড়া প্রতিবেশি কি বলবে, তবে ওর দাদা যথেষ্ঠ লিবারাল এই দিক থেকে। আমরা যখন হানিমুনে থাইল্যান্ড গেছিলাম ও নিজে থেকে আমাকে বিকিনি কিনে দিয়েছিল সমুদ্রে চান করার জন্য”। আমি চুপচাপ দুজনের কথা শুনছিলাম কিন্তু এই সময় কিছু না বলে থাকতে পারলাম না। আমি বললাম “কই কালকেইতো তোমাদের বেড়াতে যাওয়ার ছবি দেখলাম, সেখানেতো তোমার কোন বিকিনি পরা ছবি দেখিনি”। বৌদি হেসে বলল “দূর বোকা ওইসব ছবি সবাইকে দেখানো যায়? তবে তোকে দেখাতে আপত্তি নেই”।

Admin
Admin

Posts : 285
Reputation : 0
Join date : 13/08/2010

View user profile http://choti.createfreeforum.net

Back to top Go down

Re: আমার স্বামীর নাম শুভদীপ বন্দোপাধ্যায়

Post  Admin on Sun Aug 29, 2010 3:23 pm

…ততক্ষনে আমার ম্যানিকিউর হয়ে গেছিল। রিনা বলল এবার প্যাডিকিউর করবে, তাই আমাকে বলল সেলোয়ারটা খুলে ফেলতে। আমি আবার আপত্তি করায় বৌদি রেগে গিয়ে বলল “মেসোমসাই যে আমায় এত গুলো টাকা দিয়ে গেল তোর পেছনে খরচা করার জন্য তাকে আমি কি বলব”। আমি বললাম “বলার কি আছে বলবে বেঁচে গেছে আর তাছাড়া আমিতো আর মিনি স্কার্ট পরে ওদের সামনে যাচ্ছিনা সুতরাং আমার প্যাডিকিউরের কোন প্রয়োজন নেই”। বৌদি আরো রেগে গিয়ে আমায় বলল “প্রয়োজন আছে কি নেই তোকে ভাবতে হবেনা। তুই ভালয় ভালয় নিজে থেকে খুলবি নাকি আমি আর রিনা জোর করে খোলাব”। এই প্রসঙ্গে আমার সম্বন্ধে একটা কথা বলে রাখি আমি ইংরেজিতে যাকে বলে একটু সাবমিসিভ (Submissive) চরিত্রের (এর কারণ আমার মনে হয় ছোটবেলা থেকে বাড়ির সকলের কড়া শাসন) তাই বৌদির ধমক খেয়ে তাড়াতাড়ি সেলোয়ারটা খুলে দিলাম। এখন আমি শুধু একটা সাদা রঙের সাধারন কটনের ব্রা আর প্যান্টি পরে দুজনের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলাম; আমার খুবই লজ্জা লাগছিল তাই কামিজটা পরতে গেলাম কিন্তু রিনা বাধা দিল বলল কামিজের ঝুলটা বড্ড বড় কাজ করতে অসুবিধা হবে। বাধ্য হয়ে আমি ওই ভাবেই আমার সিটে গিয়ে বসলাম। বৌদি, আমি যে ম্যাগাজিনটা দেখছিলাম সেটা আমার হাতে ধরিয়ে দিয়ে বলল “এটা পড় আমি একটু বাইরে থেকে আসছি”। আমি আবার ম্যাগাজিনের সল্পবসনা মডেলদের ছবি দেখতে লাগলাম। আয়নায় নিজের শরীরের সঙ্গে মডেলদের তুলনা করছিলাম, বৌদি খুব একটা ভুল কিছু বলেনি শুধু আমার অন্তর্বাস গুলো ওদের মতন সুন্দর নয়। ততক্ষনে বৌদি ফিরে এসেছে টেলিপ্যাথির মতন বলল “সবই ঠিক আছে কেবল ওদের মতন ডিজাইনের ল্যঙ্গারি পরলে তোকেও সুপার মডেল লাগতরে অনু”। আমি লজ্জা পেয়ে বললাম “তুমি আর বার খাইয়োনা”, কিন্তু মনে মনে জানতাম বৌদি মিথ্যা কিছু বলেনি। আমার প্যাডিকিউর হয়ে গেছিল, পা দুটিকে সত্যিই খুব সুন্দর লাগছিল। ক্লাস এইটে ওঠার পর থেকে ফ্রক পরা ছেড়ে দিয়েছি, আর যা পোশাক পরি কোনটাতেই পা দেখা যায় না। বৌদি আবার আমার মনের কথা বুঝতে পেরে বলল “ভগবান তোকে এত সুন্দর পা দিয়েছেন, তোর কেবল মিনি স্কার্ট বা শর্টস পরা উচিত”। তারপর রিনার দিকে তাকিয়ে জি্জ্ঞাসা করল কিরে আমি ঠিক বলছি কিনা? রিনাও বিজ্ঞের মত উত্তর দিল “তুমি একদম ঠিক বলেছ কাবেরিদি। অনুর এত সুন্দর পা -এগুলো সবসময় ঢেকে রাখা শুধু অন্যায়ই নয় অপরাধ ও”। আমি ওদের কথার কোন প্রতিক্রিয়া না করে চুপচাপ আমার পোশাকগুলো পরার জন্য এগুচ্ছিলাম। রিনা আমাকে বাধা দিয়ে বৌদিকে বলল “ওর বগলগুলো সেভ করা নয় খুব চোখে লাগছে ওগুলো সেভ করে দেব?”। বৌদি বলল “এটা আবার জিজ্ঞাসা করার কি আছে”। আমি প্রতিবাদ করে বললাম “আমিতো স্লিভলেস পরিনা তাই আমার বগল সেভ করার কোন দরকার নেই”। বৌদি আমার দিকে কড়া দৃষ্টিতে তাকাতেই অবশ্যি আমি বাধ্য মেয়ের মত সিটে বসে পরলাম। আমারও মনে মনে বগলটা সেভ করতে ইচ্ছা করছিল; বৌদি আজকে একটা কালো রঙের শাড়ি ও কালো স্লিভলেস ব্লাউজ পরেছে, বৌদির ফর্সা হাত দুটিকে খুব সুন্দর দেখাচ্ছিল। আমার অবশ্য স্লিভলেস পরা চিন্তার বাইরে। রিনা খুব সুন্দরভাবে আমার বগল দুটো সেভ করেছে। এত মসৃন লাগছে হাত দিয়ে ছোটবেলার কথা মনে পরছে। রিনা এরপর আমার প্যান্টির দিকে তাকিয়ে বৌদিকে কিছু বলতে যাচ্ছিল কিন্তু বৌদি ওকে হাত দেখিয়ে থামিয়ে বলল “আজকের জন্য এই যথেষ্ঠ”। তারপর আমার পোশাক আমার হাতে দিয়ে বলল “রেডি হয়ে নাও আমি ততক্ষনে রিসেপসানে বিল মিটিয়ে আসছি”। যাওয়ার আগে অবশ্য রিনাকে মোটা টিপস দিল আর বলল রবিবার বিকেলে আসবে আমার মেকআপ করানোর জন্য। রিনা আমাকে ও বৌদিকে থ্যাঙ্কস বলে বৌদির সাথে বেরিয়ে গেল।
…আমি তাড়াতাড়ি পোশাক পরে বেরিয়ে দেখি বৌদির বিল দেওয়া হয়ে গেছে। আমরা পার্লার থেকে বেরিয়ে একটা ট্যাক্সি নিয়ে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম। বৌদি আমার কাঁধে হাত রেখে জিজ্ঞাসা করল “আমার ওপর রাগ করেছ?” আমি অবাক হয়ে বললাম কেন? বৌদি আরো অবাক হয়ে বলল “পার্লারে তোকে ধমকালাম……..!”, আমি বৌদিকে থামিয়ে সামান্য হেসে বললাম, “ওই সামান্য বিষয় নিয়ে তুমি এত চিন্তা কোরনা, বাড়িতে সবাই আমায় সবসময় ধমকায়। আমি কারুর উপর রাগ করিনা কারণ আমি জানি সবাই আমায় খুব ভালবাসে আর আমার ভালোর জন্য আমাকে শাসন করে”। তারপর আমি বৌদিকে জড়িয়ে ধরে বললাম “থাঙ্ক ইউ এত সুন্দর আমার বিউটি ট্রিটমেন্টের জন্য”। বৌদি আমাকেও আরো জোরে জড়িয়ে বলল “আসল থাঙ্ক ইউতো তখন বলবে যখন তোমার হবু বর এইভাবে তোমায় জড়িয়ে ধরবে”। “আবার শুরু করলে” আমি বললাম। বৌদি বলল “এতে ভুল কি আছে ? আমি যদি ছেলে হতাম তাহলে তোমার মত সুন্দরী যুবতীকে সবসময় এই ভাবে জড়িয়ে ধরে থাকতাম আর………..” আমারও খুব মজা হচ্ছিল বৌদিকে জড়িয়ে ধরে বৌদির সাথে ইয়ার্কি মারতে। তাই আমি বৌদির দিকে মিটিমিটি চোখে তাকিয়ে জিজ্ঞাসা করলাম “আর কি করতে”? বৌদি কোন কথা না বলে সোজা আমার ঠোঁটে ঠোঁট রেখে চুমু খেতে লাগল। ব্যাপারটা এত আনএক্সপেক্টেড যে আমি কি করব বুঝতে পারলামনা। শরীরটা কেমন অবশ হয়ে এল, ভিতরে ভিতরে অবশ্য ভালও লাগছিল, আমি নিজেকে পুরোপুরি বৌদির হাতে সঁপে দিলাম। বৌদি এবার নিজের জিভটা আমার মুখে ঢোকাতে চেষ্ঠা করল। আমি ঠোঁট দুটো অল্প ফাঁক করলাম আর বৌদি জিভটা আমার মুখে ঢুকিয়ে দিল। আমার খুব ভাল লাগছিল, এমন অনুভূতি জীবনে খুব কম হয়েছে। আমিও খুব এনজয় করছিলাম বৌদির সাথে ফ্রেঞ্চকিস। কতক্ষন দুজন দুজনকে এভাবে কিস করছিলাম জানিনা হঠাৎ ড্রাইভারের ডাকে হুঁশ ফিরল। “এসে গেছি ম্যাডাম”, ট্যাক্সি দাঁড় করিয়ে বলল সে। আমরা সঙ্গে সঙ্গে পরস্পরকে ছেড়ে বসলাম, বৌদি কিছুই হয়নি এমন ভাব দেখিয়ে ড্রাইভারকে জিজ্ঞেস করল “ভাড়া কত?” আমি লজ্জায় মাথা নিচু করে বসে ছিলাম, বৌদি বা ড্রাইভারের দিকে চোখ তুলে তাকাতে পারছিলাম না। বৌদি কিন্তু কনফিডেন্সলি ভাড়া মিটিয়ে দরজা খুলে নেমে গেল আর আমায় ইসারায় নামতে বলল। আমি চুপচাপ নেমে গেলাম আর নামার সময় লক্ষ্য করলাম ড্রাইভারটা আমার দিকে তাকিয়ে মুচকি মুচকি হাসছে। আমি নামার পর ট্যাক্সিটা হুস করে চলে গেল আর বৌদি আমার হাত ধরে বাড়ির দিকে হাঁটা দিল।

Admin
Admin

Posts : 285
Reputation : 0
Join date : 13/08/2010

View user profile http://choti.createfreeforum.net

Back to top Go down

Re: আমার স্বামীর নাম শুভদীপ বন্দোপাধ্যায়

Post  Admin on Sun Aug 29, 2010 3:23 pm

সবাই বোধহয় আমাদের জন্য অপেক্ষা করছিল। গেট খোলার আওয়াজ পেয়ে দরজা খুলে বেরিয়ে এল। মাসিমা আমাকে দেখে বলল “ওমা অনু তোকেতো চেনাই যাচ্ছেনা, কি সুন্দর দেখতে লাগছে!” মেসোমশাইও আমার নতুন লুকের তারিফ করল। মা আমাকে ধরে ভেতরে নিয়ে গেল, যেতে যেতে কানে কানে বলল তোকে খুব মানিয়েছে। সবার প্রসংশা শুনে আমারও খুব আনন্দ হচ্ছিল আর মন থেকে ট্যাক্সির ঘটনাটা মুছে গেল। মা বৌদির রুচির খুব প্রসংসা করল সেই সঙ্গে ধন্যাবাদ জানাতে ভুললনা। মাসি মেসোও দেখলাম বৌদির কাজে খুব গর্বিত। বৌদি বলল, “এটা আর কি দেখছ্ রবিবার মেকআপ করার পর দেখো, পাত্রপক্ষ যদি এককথায় বিয়েতে রাজি না হয় আমার নাম কাবেরি চ্যাটার্জী নয়”। মা বৌদিকে বলল “তোমার কথাই যেন সত্যি হয় বৌমা”। মাসি আমাকে আর বৌদিকে বলল অনেক দেরি হয়ে গেছে তোরা তাড়াতাড়ি চান করে নে খাওয়ার সময় হয়ে গেছে। আমাদের দুজনেরই প্রচন্ড খিদে পেয়ে গেছিল। তাই আমরা একসাথে বলে উঠলাম আগে খেয়ে নিই তারপর চান করব। মেসোমশাইও বলল সেই ভাল আমারও খিদে পেয়ে গেছে, আগে খেয়ে নেওয়া যাক। খেতে খেতে আর বিশেষ কথা হল না। খেয়ে দেয়ে আমি বাথরুমে ঢুকলাম চান করার জন্য। মাসির বাড়ির বাথরুমটা বেশ বড় আর সুন্দর করে সাজানো। পুরো মার্বেল দিয়ে মোড়া আর একটা ফুল হাইট মিরর আছে। আমি আস্তে আস্তে জামাকাপড় ছাড়তে লাগলাম, নিজেকে সম্পুর্ন অনাবৃত করে আয়নার সামনে দাঁড়ালাম। আয়নার সামনে নিজেই নিজের শরীরটাকে এ্যাডমেয়ার করছিলাম! আমার সুন্দর গোল মুখখানা, বড় বড় টানা টানা দুটো চোখ, সরু কটিদেশ, লম্বা লম্বা দু’খানা পা, ওয়াক্স করার পর আজ আমার পা দুটোকে সত্যিই খুব সুন্দর দেখাচ্ছে। তবে সবচেয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করছে আমার স্তন যুগল, এই দুটি আমার শরীরের শ্রেষ্ঠ সম্পদ! আমি আমার সুডোল মাই দু’টিকে আস্তে আস্তে টিপতে লাগলাম। খুব ভাল লাগছিল, খয়েরি রঙের বোঁটাগুলো শক্ত হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। আমি বোঁটা দু’টোকে নিয়ে আঙুল দিয়ে খেলা করছিলাম আর মনে মনে বলছিলাম শুভদীপ ব্যানার্জি তুমি আমেরিকা ফেরত বড় ইঞ্জিনিয়ার হতে পার কিন্তু অনিন্দিতা ব্যানার্জিও কিছু কম নয়, আমার মতন সুন্দরী মেয়ে এই দেশে খুব বেশি নেই। এরপর আমার দৃষ্টি গেল আমার দুপায়ের মাঝখানের ঘন জঙ্গলটার দিকে। আমার ফর্সা ধপধপে নিঁখুত শরীরের উপর কালো জঙ্গলটা একটু বেমানান লাগছিল। প্রথম প্রথম আমার ওখানে যখন বাল গজাতে শুরু করে তখনও আমার এই একই কথা মনে হত। তাই কাঁচি দিয়ে বালগুলো ছেঁটে দিতাম। তখনি আমার পার্লারের কথাটা মনে পরে গেল। রিনা কি আমার প্যান্টির দিকে তাকিয়ে তখন আমার বালগুলো কাটার কথা বৌদিকে বলতে যাচ্ছিল। আমি বালগুলোর উপর হাত রেখে দেখলাম ওগুলো ভিজে গেছে। অবশ্য প্যান্টিটা ছাড়ার সময়ই লক্ষ্য করেছিলাম সেটা ভিজে চপচপ হয়ে আছে। এর জন্য বৌদির সঙ্গে আমার ট্যাক্সির ঘটনাটা দায়ী। আঙুলটা গুদের মুখে নিয়ে গেলাম দেখলাম হড়হড় করে কামজল বেড়োচ্ছে। আমার পা দু’টো কাঁপছিল, আমি আর দাঁড়িয়ে থাকতে পারছিলাম না। বাথরুমের মেঝেতে বসে দেওয়ালে হেলান দিয়ে বাঁ হাত দিয়ে ভাল করে আঙ্গুলি করছিলাম আর ডান হাত দিয়ে মাই দু’টিকে পালা কোরে জোরে জোরে টিপছিলাম। কিছুক্ষনের মধ্যেই আমার অর্গ্যাজম হয়ে গেল! শরীরটা নিস্তেজ হয়ে গেল। আমি চোখ বন্ধ করে বাথরুমের মাঝেতে শরীরটা এলিয়ে দিলাম।.
মাস্টার্বেশন করা আমি শিখেছিলাম ঝিমলির কাছে। ঝিমলি আর আমি একসাথে স্কুলে পড়তাম, আমরা পরস্পরের অভিন্ন হৃদয় বন্ধু ছিলাম। আমাদের দু’জনের বাড়িও খুব একটা দূরে ছিলনা ফলে আমরা প্রায়ই একে অন্যের বাড়ি যেতাম। ঝিমলির বাবা মা দুজনেই চাকরি করত, তাই দিনের বেলা ওর বাড়িতে কাজের লোক ছাড়া কেউ থাকতনা। ঝিমলি মাস্টার্বেট করা শিখেছিল ওর পিসতুতো দিদির কাছ থেকে। তখন আমরা সবে টেনে উঠেছি। ঝিমলি ছুটিতে ওর পিসির বাড়ি দিল্লিতে বেড়াতে গেছিল। ফিরে এলে দেখি ও কেমন যেন বদলে গেছে। আমি জিজ্ঞেস করাতে বলল “ও অনু দিল্লিতে বাবলিদির (ওর পিসতুতো দিদির নাম বাবলি, এই প্রসঙ্গে বলে রাখা ভাল বাবলিদির সঙ্গে আমারও পরিচয় আছে। ঝিমলিদের বাড়ি এসেছে বেশ কয়েকবার। বাবলিদি আমাদের থেকে বছর পাঁচেকের বড়) কাছে এমন একটা জিনিস শিখেছিনা!”; আমি ওকে থামিয়ে জিজ্ঞাসা করলাম ‘কি শিখেছিস?’ ও চারপাশটা দেখে নিয়ে ফিসফিস করে আমায় প্রশ্ন করল “মাস্টার্বেশন কাকে বলে জানিস?” আমি ওর কথা শুনে একটু ভ্যাবাচাকা খেয়ে জিজ্ঞাসা করলাম “মা………. কী”, তখনই মনে পরে গেল একটা গল্পের বইতে পড়েছিলাম। কিন্তু “সেতো ছেলেরা……” আমার কথা শুনে ঝিমলি একটা ব্যাঙ্গাত্যক হাসি হেসে বলল “বুদ্ধু তুই এখনো একেবারে কঁচি খুকি আছিস একটুও পাকিসনি”। আমি সামান্য রাগ দেখিয়ে বললাম “আমিতো কঁচি খুকি আর তুই দু’দিন দিল্লি গিয়েই পেঁকে রসে টসটস্ করছিস”। আমার রাগ দেখে ঝিমলি আমার গালটা টিপে আমাকে জড়িয়ে ধরে বলল “টসটসে কিনা জানি না তবে পেকেছি তাতে কোন সন্দেহ নেই” তারপর আবার বলতে শুরু করল “মাস্টার্বেট করলে শরীরটা এত সেটিসফায়েড লাগে যে তোকে বলে বোঝানো যাবেনা, অবশ্য করার সময়ও খুব এনজয় ফিল হয়!” আমার খুব কৌতুহল হচ্ছিল। আমি ওকে বললাম “আমায় একবার দেখানা”। ঝিমলি আবার হেসে বলল “দূর বোকা ওসবকি এখানে দেখানো যায়? কাল বাড়ি ফাঁকা থাকবে, বাড়িতে দেখাব”। তারপর আমার দিকে ঘুরে বলল “কাল যে স্কুল তাড়াতাড়ি ছুটি হয়ে যাবে বাড়িতে বলবিনা”। বাড়ি ফিরে একটু অস্বস্থি হচ্ছিল কারণ আমি বাড়ির লোকেদের কাছে মিথ্যা কথা বলিনা। তাই আমি নিজেকে এই বলে সান্তনা দিলাম যে আমাকেতো মিথ্যে কথা বলতে হচ্ছেনা শুধু একটা কথা লুকোচ্ছি মাত্র, তা মানুষতো অনেক সময় ভুলেও যায়। রাতে ঘুম আসছিলনা বারবার একই কথা মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছিল। সকালে যথারিতি বাবা আমাকে স্কুলে ছেড়ে দিয়ে গেল। দেখি ঝিমলি আগেই এসে গেছে আমাকে দেখে মুচকি মুচকি হাসছিল। আমি কাছে যেতে জিজ্ঞেস করল “কিরে রাতে ভাল ঘুম হয়নি”। আমি ওর প্রশ্ন শুনে একটু চমকে গেলাম। আমার প্রতিক্রিয়া দেখে ও হেসে বলল “কোন চিন্তা নেই সোনামনি আজ দুপুরেই তোমার সব কৌতুহলের সমাধান করে দেব”। যথারীতি তিনটে পিরিয়ডের পর স্কুল ছুটি হয়ে গেল। ঝিমলি সাইকেলে করে স্কুলে আসে। আমি ওর সাইকেলের কেরিয়ারে বসে ওর বাড়ির দিকে রওনা হলাম। গরমকালের দুপুর বেলা পথে ঘাটে লোকজন নেই বললেই চলে। বাড়িতে পৌঁছে দেখলাম ঝিমলি তালা খুলছে। আমি জিজ্ঞেস করলাম “কিরে মিনুদি কই”? মিনুদি ওদের কাজের লোক। ঝিমলি বলল “মিনুদির বাড়িতে কার যেন বিয়ে তাই ছুটি নিয়েছে”। বাড়িতে ঢুকে দেখি সব জানলা দরজা বন্ধ। ঝিমলি আমায় বলল, তাড়াতাড়ি বাড়িতে ফোন করে দে আর কি বলব তাও বলে দিল। আমি মনে মনে ওর বুদ্ধির প্রসংশা করলাম। ফোনটা আমার মা ধরল, আমার গলার আওয়াজ শুনে ঘাবড়ে গেল। আমি মা কে আস্বস্ত করে বললাম “চিন্তার কিছু নেই আমি ঝিমলিদের বাড়ি থেকে ফোন করছি, স্কুল তাড়াতাড়ি ছুটি হয়ে গেছে তার উপর ঝিমলিদের বাড়িতে কেউ নেই তাই ওদের বাড়ি এসেছি”। মা আরো উদ্বিগ্ন হয়ে বলল “ওদের বাড়ি কেউ নেই যখন ওকে নিয়ে আমাদের বাড়ি এলিনা কেন?”। এবার ঝিমলি আমার হাত থেকে রিসিভারটা নিয়ে বলল “হ্যালো মাসিমা, আমরা দুজনে দুপুর বেলা দাবা খেলবো বলে আমাদের বাড়ি এসেছি”। তারপর একটু রাগ দেখিয়ে বলল “তবে তোমার যদি আপত্তি থাকে আমি এক্ষুনি অনুকে তোমাদের বাড়ি ছেড়ে দিয়ে আসছি”। মা ওদিক থেকে কি বলল শুনতে পেলাম না তবে ঝিমলি হাসিমুখে বলল “না না তোমায় কষ্ট করে আসতে হবে না আমি সাড়ে চারটে পাঁচটা নাগাদ অনুকে পৌঁছে দেব” এই কথা বলে ও ফোনটা রেখে দিল। আমিও বুঝলাম পারমিশন হয়ে গেছে। আনন্দে ঝিমলিকে জড়িয়ে ধরলাম, ঝিমলি আমার মত গোবেচারা নয় প্রয়োজনে বড়দের মুখের উপর কথা বলতে পারে।…

Admin
Admin

Posts : 285
Reputation : 0
Join date : 13/08/2010

View user profile http://choti.createfreeforum.net

Back to top Go down

Re: আমার স্বামীর নাম শুভদীপ বন্দোপাধ্যায়

Post  Admin on Sun Aug 29, 2010 3:23 pm

এরপর আমরা জড়াজড়ি করে ঝিমলির বেডরুমে গেলাম। আমার বুকের মধ্যে একটা চাপা উত্তেজনা হচ্ছিল। আমরা দু’জনে খাটে বসলাম। ও আমার দিকে তাকিয়ে বলল “কি খুকুমনি খুব জানতে ইচ্ছে করছে মাস্টার্বেশন কাকে বলে?” ‘খুকুমনি’ বলাতে আমার রাগ হলেও আমি মিষ্টি স্বরে ওকে বললাম “ইয়ার্কি না মেরে শুরু করনা?”। “ঠিক হ্যায়”- বলে ও উঠে দাঁড়াল। তারপর আমার দিকে তাকিয়ে দিদিমনিদের মত কড়া গলায় অর্ডার দিল “স্ট্যান্ড আপ”। আমি বাধ্য মেয়ের মত উঠে দাঁড়ালাম। “সব জামা কাপড় খুলে ফেল” সঙ্গে সঙ্গে পরবর্তী নির্দেশ এল। “সব?” আমি লাজুক কন্ঠে জিজ্ঞাসা করলাম। “হ্যাঁ, শাড়ি-সায়া-ব্লাউজ-ব্রা-প্যান্টি সবকিছু”। আগেই বলেছি আমি সাবমিসিভ চরিত্রের তাই ঝিমলির এই কর্তৃত্ব আমায় যৌনভাবে আরো উত্তেজিত করে তুলছিল। আমি চুপচাপ জামা কাপড় ছাড়তে লাগলাম আর ঝিমলি খাটের ওপর বসে ঠ্যাং নাচাতে নাচাতে বড় বড় চোখ করে আমার কাপড় ছাড়া উপভোগ করছিল। ওর লোভি দৃষ্টি আমায় আরো কামোত্তেজিত করে তুলল। প্যান্টিটা যখন খুলছি ও হাত বাড়িয়ে ইসারায় ওটা চাইল আর আমিও দিয়ে দিলাম। ও আমার প্যান্টিটা ভালো করে হাত দিয়ে নেড়ে কি যেন পরীক্ষা করে নাকের কাছে নিয়ে গিয়ে গন্ধ শুঁকলো। তারপর মন্তব্য করল “এর মধ্যেই ভিজে গেছে?” তারপর আবার আমার দিকে দৃষ্টি ফেরাল। আমি লজ্জায় কৌতুহলে এবং যৌন উত্তেজনায় ঘরের কোনায় জড়সড় হয়ে দাঁড়িয়ে ছিলাম। “ওই রকম কুঁকড়ে ঘরের কোনায় দাঁড়িয়ে আছিস কেন”? আমায় প্রশ্ন করল। আমি কিছু উত্তর দেওয়ার আগেই ও আবার কড়া গলায় নির্দেশ দিল “আমার কাছে আয় – আমার চোখে চোখ রেখে দাঁড়া”। আমি আদেশানুসারে ওর কাছে গিয়ে ওর চোখে চোখ রেখে দাঁড়ালাম। ঝিমলি খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে পা থেকে মাথা পর্যন্ত আমার নগ্ন শরীরটাকে পর্যবেক্ষণ করছিল। কিছুক্ষন পর আবার ছোট্ট নির্দেশ দিল “পেছনে ঘুরে দাঁড়া”। আমি সুবোধ বালিকার মত ঘুরে দাঁড়ালাম। ঝিমলি আমার দিকে তাকিয়ে বলল “তোর কথাবার্তা খুকুমনির মত হলেও তোর শরীর কিন্তু পেকে রসে টসটস করছে”। তারপর আমায় আবার নির্দেশ দিল এবার আমায় ল্যাংটো কর। আমি ওর কথা মত ওর জামা কাপড় খুলতে লাগলাম। এই ফাঁকে ঝিমলির শরীরের বর্ণনাটা দিয়ে নিই। ঝিমলিকে দেখতে আমার প্রায় উলটো, ঘাবড়াবেন না। ঝিমলি আমার থেকে খুব একটা কম সুন্দরি নয়। লম্বা মুখ, শ্যামলা রঙ, মসৃন ত্বক সব মিলিয়ে ঝিমলির শরীরে একটা অদ্ভুত কামুকতা আছে। যা খুব কম মেয়েদের মধ্যে দেখা যায়। আমি চুপচাপ ওর শাড়ী-ব্লাউজ-সায়া খুললাম। এখন ও আমার সামনে কেবল ব্রা আর প্যান্টি পরে দাঁড়িয়ে আছে। ওর অন্তর্বাসটা খুব সুন্দর। সাদা রঙের লেস দিয়ে তৈরি, ডিজাইনটাও খুব সুন্দর আর সেক্সি। ওর শ্যামলা গড়নের ওপর সাদা অন্তর্বাসে ওকে আরো লাস্যময়ী করে তুলেছিল। “হাঁ করে শুধু দেখবি নাকি বাকি গুলো খুলবি”। ঝিমলির কথায় আমার হুঁস ফিরল আর তাড়াতাড়ি ওর ব্রাটা খুলে দিলাম। ওর কুচকুচে কালো রঙের স্তনবৃন্ত দুটি আমার নজরে এল। ওর মাই দুটো আমারই মতন সাইজের আর আমার মতন সুন্দর আর সুডৌল। এরপর আমি ওর প্যান্টিটা খুললাম। খুলতে গিয়ে দেখি ওরটাও আমার মত ভিজে চ্যাপচ্যাপ করছে।

Admin
Admin

Posts : 285
Reputation : 0
Join date : 13/08/2010

View user profile http://choti.createfreeforum.net

Back to top Go down

Re: আমার স্বামীর নাম শুভদীপ বন্দোপাধ্যায়

Post  Sponsored content Today at 5:21 am


Sponsored content


Back to top Go down

View previous topic View next topic Back to top


 
Permissions in this forum:
You cannot reply to topics in this forum